দুর্গাপুরের শিল্পপতির সাথে মাও যোগ? বিধাননগরের বাড়িতে এন আই এর হানা

আমার কথা, পশ্চিম বর্ধমান, ৯অক্টোবরঃ
দুর্গাপুরের শিল্পপতি সোনু আগরওয়ালের সাথে মাওবাদি যোগের অভিযোগ উঠল। ওই শিল্পপতি মাওবাদীদের টাকা দিয়ে সাহায্য করত, এই অভিযোগে আজ ভোরে কাঁকসার বামুনাড়ায় তার একটি বেসরকারী ইস্পাত কারখানা ও বিধাননগরের বাড়িতে হানা দেয় কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থা(ন্যাশানাল ইনভেস্টিগেটিং এজেন্সি)।


এনআইএ সুত্রের খবর, আজ ঝাড়খন্ড ও পশ্চিমবাংলার ১৫টি জায়গায় এনআইএ এর ১৫টি দল এক সাথে হানা দেয়। ঝাড়খন্ডের ‘আম্রপালি’ ও ‘মগধ’ নামে দুটি কোলিয়ারির কয়লা বেচা কেনা ও পরিবহনের সাথে যুক্ত বিভিন্ন কোম্পানীর ম্যানেজারদের দপ্তর ও বাড়িতে আজ তল্লাশী চালানো হয়। এই তল্লাশীতে প্রচুর পরিমাণে সন্দেহ্জনক জিনিসপত্র উদ্ধার করা হয়েছে যা ওই শিল্পপতির বিরুদ্ধে যায়। পাওয়া গেছে, ৬৮লক্ষ নগদ টাকা, ১০হাজার সিঙ্গাপুরী ডলার, ১৩০০ আমেরিকার ডলার, ৮৬হাজার টাকা মূল্যের ৫০০ ও ১০০০ টাকার অচল নোট। পাশপাশি, বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ডিটেলস, বেশ কিছু ফিক্সড ডিপোজিট, কম্পিউটার, কম্পিউটারের হার্ড ডিস্ক, মোবাইল, বেশ কিছু লেনদেনের নথিপত্র, মাওবাদি সংঠন(পিপলস লিবারেশন ফ্রন্ট অফ ইন্ডিয়া) ও অতি বামপন্থী সংগঠন(তৃতীয় প্রস্তুতি কমিটি-টিপিসি)গুলিকে যে আর্থিক সাহায্য করা হতো তার নথিপত্র। অভিযোগ এ সমস্ত কোম্পানীগুলির মালিক ওই শিল্পপতি সোনু আগরওয়াল বলে সন্দেহ এনআইএর। এই অভিযোগে আজ দুর্গাপুরের বিধাননগরে শিল্পপতির বাড়িতে যখন হানা দেয় এনআইএর দল, সেই সময় ওই শিল্পপতি পালানোর উপক্রম করলে বাড়ি ঘিরে ফেলে ওই কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার সদস্যরা, সাথে কাঁকসা থানার পুলিশবাহিনী ও সি আর পি এফ বাহিনী। এরপর ওই শিল্পপতিকে তার বাড়িতে আটক করে চলে দফায় দফায় জেরা।

Spread The Word