বিজেপি যা করেছে তা আবার করুক, তখন ছ’মাস নার্সিংহোমে থাকতে হবে- চ্যালেঞ্জ বিধায়ক জিতেন্দ্র তিওয়ারীর

আমার কথা, পশ্চিম বর্ধমান, ৩নভেম্বরঃ

বিজেপির বিতর্কিত সভার রেশ রয়ে গেছে ৪৮ঘন্টা পেরিয়ে যাওয়ার পরেও। আজ দুর্গাপুরের সগড়ভাঙ্গার বিডিও অফিসের মাঠে একটি পাল্টা জনসভা করল তৃণমূল কংগ্রেস।

সেই জনসভার মঞ্চ থেকে বিজেপিকে রীতিমতো চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিলেন বিধায়ক তথা আসানসোলের মেয়র জিতেন্দ্র তিওয়ারী। তিনি বলেন, “দুদিন আগে বিজেপির নেতার এখানে বক্তব্য রেখেন বা আরো যা যা করে গেছেন, শুধু একটি অনুরোধ তাদের কাছে সেটা আরো একবার হোক। যদি বুকের পাটা থাকে, আর যদি মায়ের দুধ খেয়ে থাকলে আরো একবার আসুন। শুধু এখানে নয়, পশ্চিম বর্ধমানের যে কোনো জায়গায় এসে যে আচরন করেছিলেন তার পুনরাবৃত্তি করে দেখান। এর পরের ছয় মাস আপনাদের নার্সিংহোমে কাটাতে হবে।”

প্রসঙ্গতঃ ১নভেম্বর দুর্গাপুরের কোকওভেন থানা এলাকার সগড়ভাঙ্গার বিডিও অফিসের মাঠে বিজেপির পক্ষ থেকে একটি জনসভার আয়োজন করা হয়েছিল। সেই সভায় উপস্থিত ছিলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ, বিজেপি নেতা মুকুল রায়, ও জয় ব্যানার্জী। কিন্তু সভার আগের দিন থেকেই ওই মাঠে সভা করা নিয়ে আসানসোল দুর্গাপুর পুলিশের সাথে বাদানুবাদ দেখা যায়। পুলিশের দাবি ওই মাঠ নিয়ে পুলিশের কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। কিন্তু বিজেপির পালটা অভিযোগ ছিল যে ওই মাঠের ট্রাস্টি বোর্ডের অনুমোদন তারা পেয়েছেন আর তার জন্য এক হাজার টাকাও তারা দিয়েছেন। শেষে ওই মাঠে সভা করে বিজেপি। কিন্তু এরপরেই আসে সেই পরিস্থিতি। মুকুল রায় মাঠে ঢুকতেই প্রায় ৩০০ সিভিক ভলান্টিয়ারকে তাড়া করে বিজেপি কর্মীরা। তা নিয়ে তৈরীও হয় বিতর্ক। এরপরেই আজ সেই একই মাঠে পালটা সভা করল তৃণমূল কংগ্রেস।

 

তৃণমূলের এদিনের সভায় উপস্থিত ছিলেন জেলা সভাপতি শিব্দাশন দাশু, কার্যকরী সভাপতি উত্তম মুখার্জী, ডিএমসির চেয়ারম্যান মৃগেন্দ্রনাথ পাল, দেপুটি মেয়র অনিন্দিতা মুখার্জী, মেয়র পারিষদ অমিতাভ ব্যানার্জী, প্রভাত চ্যাটার্জী, পবিত্র চ্যাটার্জী সহ পুরপিতা ও পুরমাতারা।

Spread The Word