সরকারী প্রকল্পকে বুড়ো আঙ্গুল, কন্যা সন্তান জন্ম দেওয়ার কারনে আগুনে পোড়ানো হল গৃহবধূকে

আমার কথা, পূর্ব বর্ধমান, ১২নভেম্বরঃ

ফের কন্যা সন্তানের জন্ম দেওয়ার কারনে বলি হলেন জন্মদাত্রী মা। গৃহবধূকে পুড়িয়ে মারার অভিযোগ উঠল শ্বশুরবাড়ির বিরুদ্ধে। ঘটনাটি পূর্ব বর্ধমানের রায়নার শ্যামসুন্দরের শিবরামপুরের। মৃতার নাম পুজা দাস(২৩)।

জানা গেছে, বছর সাতেক আগে পেশায় রাজমিস্ত্রি সাথে পপকর্ণ বিক্রেতা সুমন দাসের সাথে দেখাশুনা করে বিয়ে হয় পুজার। ওই গৃহবধূর বাবা গুরুপদ দাসের অভিযোগ, বিয়ের পর থেকেই পুজার ওপর মানসিক অত্যাচার করত তার শ্বশুরবাড়ির পরিবার। এরপর ওই দম্পতির একটি কন্যা সন্তান হয়। তারপর থেকে পুজার ওপর অত্যাচারের মাত্রা আরো বেড়ে যায়। শুরু হয় শারীরিক অত্যাচারও। এই বিষয়টি নিয়ে তাদের সাথে আলোচনা করে মেটানোর চেষ্টা করা হলেও তা মেটেনি বলে জানান গুরুপদবাবু। এরপর গত শনিবার পুজার গায়ে কেরোসিন তেল ঢেলে গায়ে আগুন লাগিয়ে দেয় বলে দাবি করেন পুজার বাবা। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে বর্ধমান মেডিক্যাল হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালেই মৃত্যু হয় পুজার।

একদিকে যেমন রাজ্যে ‘কন্যাশ্রী’ প্রকল্প কিংবা কেন্দ্রে ‘বেটি পড়াও বেটি বাঁচাও’ অভিযানের মধ্যে দিয়ে মেয়েদের উন্নয়ণের চেষ্টা চালানো হচ্ছে, সেখানে এখন বিভিন্ন দিকে বিভিন্ন সময়ে শুধু কন্যা সন্তান জন্ম দেওয়ার কারনে জীবন যাচ্ছে কত গৃহবধূর।




Spread The Word