লক্ষ্যভেদের লক্ষ্যে প্রথম পদক্ষেপ ঝাড়গ্রাম জেলা পুলিশ

আমার কথা, ঝাড়গ্রাম, ১ফেব্রুয়ারীঃ
লক্ষ্যভেদ করতে আসরে নামল পুলিশ। ঝাড়গ্রাম জেলা পুলিশের উদ্যোগে শুরু হল বেকার যুবক যুবতীদের চাকরি পরীক্ষার এই প্রশিক্ষণ কর্মসূচি। আজ পুলিশ সুপারের দপ্তরের সভাকক্ষে কর্মসূচির উদ্বোধন করলেন জেলা পুলিশ সুপার অরিজিৎ সিনহা। ঝাড়গ্রাম জেলার ৯টি থানা এলাকার কর্মহীন যুবক যুবতীদের মধ্যে থেকে পরীক্ষার মাধ্যমে ১০৭ জনকে প্রশিক্ষণের জন্য বাছাই করা হয়েছে। এদিন  অনুষ্ঠানে ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বিশ্বজিৎ মাহাতো, ডিএসপি (সদর) সাইমন তামাং প্রমুখ।
এসপি যুবক যুবতীদের উদ্দেশ্যে বলেন, “তোমরা সদর্থক চিন্তা ভাবনা নিয়ে এগোও, আমরা সহযোগিতা করব। পিএসসি পরীক্ষা দিয়ে আমরা এসেছি। প্রতিটি চাকরির জন্য পৃথক পৃথক প্রস্তুতি দরকার। ১৬০০ আবেদনের মধ্যে ৬০০ জন পরীক্ষা দিয়েছিল। বিভ্রান্তি নিয়ে এগোনো যায় না। এখানে আরও অনেকের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে নিজের ঘাটতি বা উৎকর্ষতার বিষয়টিও তোমরা বুঝতে পারবে। প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার ধরনটা অন্য পরীক্ষার থেকে আলাদা। একটি পরীক্ষায় অকৃতকার্য হলে ভেঙে পড়লে চলবে না। কেন তোমরা কৃতকার্য হলে না সেটা বিশ্লেষণ করে ঘাটতিগুলি পূরণ করতে হবে।”
সপ্তাহে তিনদিন ক্লাস তিনদিন চার ঘণ্টা করে ক্লাস।২০ জন টপ পারফর্মারকে স্টাডি কিট তুলে দেন এসপি।পরীক্ষা কেন্দ্রে পৌঁছানোর দায়িত্ব পালন করবে পুলিশ জানান এসপি অরিজিৎ সিনহা।



Spread The Word